মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪
৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় মাদক সম্রাজ্ঞী মীম এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: শুক্রবার, জুন ৭, ২০২৪

খুলনায় মাদক সম্রাজ্ঞী মীম এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে
আবু হেনা মুক্তিঃ
পুলিশ নারকটিকস ও র‍্যাবের  দফায় দফায় অভিযানে মাদকের বিভিন্ন সাম্রাজ্যে আঘাত আনলেও ফাক ফোকর দিয়ে মাদকসম্রাজ্ঞী মিম এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। 
একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার নজরে আসা মিম এক ভয়ঙ্কর মাদক বিক্রেতার নাম। অভিনব স্টাইলে মাদক বিক্রি করে অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন। স্বামী স্ত্রী মিলে কক্সবাজার লিংক থেকে ইয়াবা এনে খুলনায় সাপ্লাই দিয়ে গোটা যুব সমাজকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে দাঁড়িয়েছে এই মাদকসম্রাজ্ঞী। মক্ষ্মী রানী হিসেবে পরিচিত মীম এখনো সমাজের গলার কাঁটা। ফিল্মি স্টাইলে মাদক বিক্রি করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাথায় যেন টুপি পরাচ্ছে সে। 
বিভিন্ন কলাকৌশলে এই মাদক সম্রাজ্ঞী পর্নোগ্রাফি তৈরি করে ব্ল্যাকমেইল করে হাতিয়ে নেয় বিভিন্ন পার্টির কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা।খুলনা সদর থানা পুলিশের একটি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।  সিনেমা স্টাইলে মিম সারা শহরে চলে একটি স্কুটি নিয়ে। যার কোন বৈধ কাগজপত্র নেই বলে জানা গেছে। ওই স্কুটির সিটের নিচে মাদক নিয়ে সারা শহরের সাপ্লাই দেয়।বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ছদ্মবেসে মিম মাদক বিক্রি করে থাকে।  বিষয়টি এখন নারকোটিক্স ও একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার নজরে। 
মাদক ব্যবসার সাথে সাথে মিমের বিরুদ্ধে  রয়েছে অসামাজিক কর্মকান্ডের নানা অভিযোগ। নারী সাপ্লাইয়ের ঘটনাও রয়েছে হর হামেশা তার বিরুদ্ধে। 
দেহ ব্যবসা আর মাদক চোরাচালানি করে জিরো পয়েন্টের সন্নিকটে সম্প্রতি জায়গাও কিনেছে মাদকসম্রাজ্ঞী মীম। 
গোয়েন্দা সূত্র মতে মোট ১৩ টি পয়েন্টে মিম মাদক বিক্রি করে থাকে।মিমের বেশ কিছু অপকর্মের ভিডিও এবং অডিও অলরেডি একটি বিশেষ সংস্থার কাছে। তদন্তের স্বার্থে মুখ খুলছে না তারা। তবে বিষয়টি সম্পর্কে আভাস দিয়েছেন রীতিমত। মিমের মাদক বিক্রির টাকা দিয়ে যে অর্থনৈতিক উত্থান তার হয়েছে সে বিষয়ে চলছে চুল চেরা বিশ্লেষণ। মিম কানেকশনে কারা কারা রয়েছে তাদেরও তালিকা হচ্ছে বলে জানা গেছে। দু একজন অসাধু কর্মকর্তা যারা তার কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে থাকে প্রতি মাসে তাদেরকেও নজরে রেখেছে সংস্থাটি। নগরীর ২২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মিম   র‍্যাব ও পুলিশের অভিযানে এখনো কেন ধরা ছোয়ার বাইরে তা জনগণের বোধগম্য নয়। 
খুলনাবাসী কেএমপি পুলিশের স্বনামধন্য কমিশনারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন সমাজ ধ্বংসকারী কুখ্যাত মাদকসম্রাজ্ঞী মিমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। এদিকে বাংলাদেশ পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সোসাইটি খুলনা বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক আজগর হোসেন এক বিবৃতিতে মিমকে গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার জন্য  র‍্যাবের নব নিযুক্ত  মহাপরিচালক  মহোদয় এর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
0 Comments